ক্যালিফোর্নিয়ার ভূমিকম্পে ভূপৃষ্ঠে বিশাল ফাটল


স্যাটেলাইটে পাওয়া ভূমিকম্পের আগের ও পরের ছবি। ছবি: সংগৃহীত
স্যাটেলাইটে পাওয়া ভূমিকম্পের আগের ও পরের ছবি।

 

 

মাত্র ৪৮ ঘণ্টার ব্যবধানে গত সপ্তাহে দু’বার শক্তিশালী ভূমিকম্পে কেঁপে উঠেছে যুক্তরাষ্ট্রের বৃহত্তম অঙ্গরাজ্য ক্যালিফোর্নিয়া। প্রথমবার ৬ দশমিক ৪ মাত্রার হলেও, গত শুক্রবার (৫ জুলাই) ভূমিকম্পের মাত্রা ছিল ৭ দশমিক ১।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলোর তথ্যমতে, এটি ছিল রাজ্যটিতে গত ২০ বছরের মধ্যে সবচেয়ে শক্তিশালী ভূমিকম্প।

ইউএস জিওলজিক্যাল সার্ভে (ইউএসজিএস) জানিয়েছে, ভূমিকম্পটির উৎপত্তিস্থল ছিল লস অ্যাঞ্জেলেসের ১২৫ কিলোমিটার উত্তর-পূর্বে রিজক্রেস্ট শহরে।

স্থানীয় সময় রাত ৮টা ১৯ মিনিটে ঘটে যাওয়া এ প্রাকৃতিক দুর্যোগের ক্ষয়ক্ষতি তাৎক্ষণিকভাবে খুব একটা বোঝা যায়নি। কিন্তু, দিনের আলো ফোটার সঙ্গে সঙ্গে চোখে পড়ে এর ভয়াবহতা। প্রাণহানি না ঘটলেও, বিধ্বস্ত হয় অসংখ্য বাড়িঘর, রাস্তা-ঘাট।

তবে, এর ভয়াবহতার প্রকৃত চিত্র দেখা গেছে স্যাটেলাইটের ছবিতে। ভূমিকম্পের ফলে ওই এলাকার ভূতাত্ত্বিক মানচিত্রই বদলে গেছে।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম সিএনএন’কে দেওয়া প্ল্যানেট ল্যাবসের ছবিতে দেখা যায়, ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থলের কাছে ভূ-ভাগে বিশাল ফাটল তৈরি হয়েছে।

সিএনএন জানায়, ফাটলের আশপাশের এলাকায় আগে জলাধার ছিল। কিন্তু, নতুন ছবিতে ফাটল ও বালুর নকশা দেখে বোঝা যাচ্ছে, সেখানকার অনেকটা পানি শুষে নেওয়া হয়েছে।

শুধু স্যাটেলাইটের ছবিতেই ধ্বংসযজ্ঞের প্রমাণ পাওয়া গেছে, এমন না। কাছাকাছি একটি মহাসড়ক ধসে পড়ায় সেখানকার যান চলাচল এখনো বন্ধ রয়েছে।

ওই অঞ্চলে আরও ভূমিকম্পের আশঙ্কা আছে বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।