বার্নাব্যুতে রিভারপ্লেটের শিরোপা উৎসব


শেষ পর্যন্ত রিভারপেল্টের মুখেই ফুটল শিরোপার হাসি। রবিবার সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে কোপা লিবার্তাদোরেসের ফাইনালের দ্বিতীয় লেগে রিবারপ্লেট ৩-১ গোলে হারিয়েছে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী বোকা জুনিয়র্সকে। এর ফলে সমষ্ঠিগতভাবে ৫-৩ গোলে বোকাকে হারিয়ে দক্ষিণ আমেরিকা মহাদেশের ক্লাব ফুটবলের সর্বোচ্চ টুর্নামেন্ট জয়ের স্বাদ পেল রিভারপ্লেট।

ফাইনালের প্রথম লেগটা ড্র হয়েছিল ২-২ ব্যবধানে। শিরোপা নির্ধারণী দ্বিতীয় লেগের ম্যাচটা অনুষ্ঠিত হয় স্প্যানিশ ক্লাব রিয়াল মাদ্রিদের মাঠ সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে। ম্যাচ দেখতে এদিন গ্যালারিতে উপস্থিত হয়েছিলেন লিওনেল মেসি-অ্যান্থনি গ্রিজম্যানের মতো সময়ের সেরা ফুটবলাররা। মেসির সঙ্গে একত্রে খেলা দেখার জন্য আমন্ত্রণ পাঠানো হয়েছিল সময়ের আরেক মহাতারকা ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোকেও। কিন্তু সিআর সেভেন রাজি হননি তার সাবেক ক্লাবে ফিরতে।

তবে মেসি-গ্রিজম্যানদের হতাশ করেনি আর্জেন্টিনার সেরা দুই ক্লাব। বরং তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বিতা উপহার দেয় ক্লাব দুটি। শুরু থেকেই দারুণ খেলতে থাকে তারা। তবে প্রথম এগিয়ে যায় বোকা জুনিয়র্স। প্রথমার্ধের ৪৪ মিনিটে ড্যানিয়েল বেনেদেত্তোর গোলে এগিয়ে যায় তারা। এই গোলে লিড নিয়েই বিরতিতে যায় বোকা। তবে এগিয়ে যাওয়ার উচ্ছ্বাস খুব বেশিক্ষণ ধরে রাখতে পারেনি বোকা জুনিয়র্স।

দ্বিতীয়ার্ধের ৬৮ মিনিটে সেই গোল শোধ করেন রিভারপ্লেটের ফরোয়ার্ড লুকাস প্রাত্তো। এরপর নির্ধারিত ৯০ মিনিটে আর কোনো গোল না হলে ম্যাচ গড়ায় অতিরিক্ত সময়ে। আর সেই অতিরিক্ত সময়েই জ্বলে ওঠে রিভারপ্লেট। প্রতিপক্ষের জালে এই সময়টাতে দুবার বল জড়ায় তারা। সেইসঙ্গে চতুর্থবারের মতো কোপা লিবার্তাদোরেসের শিরোপা জিতে রিভারপ্লেট।

বার্সেলোনা-রিয়াল মাদ্রিদ কিংবা ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড-ম্যানচেস্টার সিটির দৌরাত্ম্যের মতোই আগুনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা রয়েছে আর্জেন্টিনার শীর্ষ দুই ক্লাব রিভারপ্লেট আর বোকা জুনিয়র্সের মধ্যে। তবে এবারের প্রতিদ্বন্দ্বিতা মাঠ ছেড়ে ছড়িয়ে পড়েছিল মাঠের বাইরে সমর্থকদের মধ্যেও।

২৫ নভেম্বর দক্ষিণ আমেরিকা মহাদেশের ক্লাব ফুটবলের সর্বোচ্চ টুর্নামেন্ট কোপা লিবার্তাদোরেসের ফাইনালে মুখোমুখি হওয়ার কথা ছিল দুই দলের। সেই ম্যাচে অংশ নিতে রিভারপ্লেটের মাঠের উদ্দেশে যাত্রার পথে টিম বাসে হামলার শিকার হয় বোকা জুনিয়র্সের খেলোয়াড়রা। বাসের জানালার কাঁচ ও পেপার স্প্রের আঘাতে সরাসরি হাসপাতালে ছুটতে হয়েছিল পাবলো পেরেজ, গঞ্জালো লামাদেরকে। যে কারণেই পরবর্তীতে পিছিয়ে সেই আগুনে ম্যাচ নেওয়া হয় রিয়াল মাদ্রিদের মাঠ সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে।

আর্জেন্টিনার দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ক্লাব এবারই এই টুর্নামেন্টের ফাইনালে প্রথমবারের মতো মুখোমুখি হয়। তাই দেশটির ফুটবলপ্রেমীদের মধ্যে ছিল বাড়তি উত্তেজনা। যে কারণে শিরোপার লড়াইটা নিজেদের দেশ থেকে ১০ হাজার কিলোমিটার দূরে হলেও কয়েক ঘণ্টার জন্য ২,৫০০০ পেসো (আর্জেন্টাইন মুদ্রা) খরচ করে মাদ্রিদে গিয়েছিলেন ১০ হাজার বোকা-রিভার সমর্থক!

এই ম্যাচকে ঘিরে ছিল বাড়তি নিরাপত্তাও। স্পেনের ইতিহাসে ফুটবল মাঠে নজিরবিহীন নিরাপত্তা বলয় গড়ে তোলা হয়। নিরাপত্তাব্যবস্থা করতে খরচ হয়েছে ৫৫ মিলিয়ন ইউরো।

এই জয়ের ফলে এখন ক্লাব বিশ্বকাপে অংশ নেবে রিভারপ্লেট। আগামী ১২ ডিসেম্বর থেকে এই টুর্নামেন্ট হবে সংযুক্ত আরব আমিরাতে। স্পেন থেকে সরাসরি সেখানে চলে যাবে রিভারপ্লেট।