ক্যারিয়ারের শেষ ম্যাচেও গেইলের সেঞ্চুরি


বিদায়ী ম্যাচে গেইলকে গার্ড অব অনার দিচ্ছেন দুই দলের খেলোয়াড়রা।
আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এখনো খেলে যাচ্ছেন ক্রিস গেইল। কিন্তু লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটকে একেবারেই বিদায় জানিয়ে দিয়েছেন উইন্ডিজের এই ব্যাটিং দানব। শেষটা অবশ্য করেছেন তার নিজস্ব ভঙ্গিতেই। বিদায়ী ম্যাচে হাঁকিয়েছেন দুর্দান্ত সেঞ্চুরি। একই সঙ্গে জিতিয়েছেন দলকে। মূলত বিদায়ী ম্যাচে গেইলের সেঞ্চুরিতেই জয় পেয়েছে তার ঘরোয়া ক্রিকেটের দল জ্যামাইকা।
৬ অক্টোবর, শনিবার আঞ্চলিক ৫০ ওভারের ম্যাচে ‘বি’ গ্রুপে বার্বাডোজের মুখোমুখি হয়েছিল জ্যামাইকা। এই ম্যাচে মাঠে নামার আগেই লিস্ট ‘এ’ ক্যারিয়ারের ইতি টানার ঘোষণা দেন গেইল। এরপর তাকে গার্ড অব অনার দিয়ে সম্মান জানান দুই দলের খেলোয়াড়রা।

এরপর মাঠে নেমে গেইল স্পর্শ করেন তিন অঙ্কের ম্যাজিক ফিগার। ক্যারিবীয় ব্যাটিং দানবের ব্যাট থেকে আসে ১২২ রান। ১১৪ বলে ১০ চার ও ৮ ছক্কায় ১২২ রানের ইনিংসটি সাজান তিনি। তার সেঞ্চুরিতে ভর করে জ্যামাইকা পায় ২২৬ রানের বড় সংগ্রহ। জবাবে ১৯৩ রানেই গুটিয়ে যায় বার্বাডোজ। তাতে ৩৩ রানের জয় নিয়ে গেইলের বিদায়ী ম্যাচটি স্মরণীয় করে রাখে জ্যামাইকা।

এদিকে ব্যাটের পর বল হাতেও সাফল্য পেয়েছেন গেইল। ১০ ওভারে ৩১ রান খরচ করে তুলে নেন একটি উইকেট। ব্যাটে-বলে পারফরম্যান্সে ম্যাচসেরা নির্বাচিত হয়েছেন বাঁহাতি এই ব্যাটম্যান। ম্যাচ শেষে গেইল জানান, জ্যামাইকার হয়ে আরেকটি প্রথম শ্রেণির ম্যাচ খেলার ইচ্ছা আছে তার। এরপর জ্যামাইকাকে পুরোপুরি বিদায় জানাবেন তিনি।

একই সঙ্গে গেইল জানিয়েছেন তার অনুভূতির কথা। সেঞ্চুরি ও লিস্ট ‘এ’ ক্যারিয়ারের শেষ ম্যাচ নিয়ে বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান বলেন, ‘জ্যামাইকার হয়ে শেষ ৫০ ওভারের ম্যাচে সেঞ্চুরি করাটা ছিল আনন্দদায়ক। এমনই এক অনুভূতি যেটা সব সময়ই চেয়েছিলাম। জয় পেতে দলকে এগিয়ে নেওয়াটা ছিল আরও বিশেষ কিছু। নিজের দেশকে প্রতিনিধিত্ব করাটা ছিল আরও তৃপ্তিদায়ক। একইভাবে ওদের নেতৃত্ব দেওয়াটাও।’