বিদায়ী উপহার হিসেবে কুক পেলেন ৩৩ বোতল বিয়ার!


পাঁচ ম্যাচের টেস্ট সিরিজের চতুর্থটি শেষ হতেই অ্যালিস্টার কুক ঘোষণা দিলেন সিরিজের পঞ্চম টেস্টটিই হবে তার ক্যারিয়ারের শেষ টেস্ট। ইংলিশ ক্রিকেটের এই মহানায়ক, ক্যারিয়ারের শেষটাও করলেন রূপকথার মতোই। সেঞ্চুরি আর রেকর্ডের ফুলঝুরিতে কুক ইতি টানলেন এক যুগেরও লম্বা আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারের।

শতকে শুরু, আবার সেই শতকেই শেষ। এমন পরিসমাপ্তি কজন ক্রিকেটারের ভাগ্যে লেখা থাকে। কিন্তু তিনি যে রূপকথার নায়ক, আর তাই তো ক্যারিয়ারের শেষ ইনিংসেও উইলো হাতে ২২ গজে দেখালেন কারিশমা। ক্যারিয়ার যখন শেষ করলেন তখন তার নামের পাশে লেখা ৩৩টি টেস্ট সেঞ্চুরি।

দলের মহাতারকার বিদায়টা অবশ্য জয় দিয়েই রাঙিয়েছেন ইংলিশ ক্রিকেটাররা। উপহার দিয়েছেন ক্যারিয়ারের শেষ টেস্টে  জয়, সেই সঙ্গে ভারতকে ৪-১ এ সিরিজ হারানোর স্বাদও। তবে কুক সবচেয়ে আবেগী উপহারটা পেলেন ম্যাচ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে। ইংল্যান্ডের এক সাংবাদিক কুকের হাতে তুলে দিলেন ৩৩টি বিয়ারের বোতল।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় বলা কুককে উপহার দিয়ে সেই সাংবাদিক বলেন, ‘সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে আপনাকে অভিনন্দন। খেলোয়াড় হিসেবে, অধিনায়ক হিসেবে এত বছর ধরে আপনার সব অর্জনকেই আমরা অভিনন্দিত করছি। আর এত বছর ধরে আপনি যেভাবে আমাদের সামলেছেন (সাংবাদিকদের) সে জন্য রইলো বিশেষ অভিনন্দন।’

৩৩ বোতল বিয়ার – এটা মূলত কুকের ৩৩টি টেস্ট সেঞ্চুরিকে স্মরণীয় করে রাখতেই দেওয়া। ২০০৬ সালের মার্চে ভারতের বিপক্ষে টেস্ট সেঞ্চুরি দিয়েই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পথচলা শুরু বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যানের।বিদায় বেলার প্রতিপক্ষ আবারও সেই ভারত। শুরুর মতো ক্যারিয়ারের শেষ ইনিংসেও হাঁকালেন সেঞ্চুরি।

একই সঙ্গে সাদা পোশাকে ইংল্যান্ডের সবচেয়ে সফল ব্যাটসম্যানতো বটেই, টেস্ট ক্রিকেটে বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যানদের মধ্যে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক হিসেবেও নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করলেন কুক। শুধু তাই নয়, বিদায় বেলায় টেস্ট ক্রিকেটের পঞ্চম সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক হিসেবেও নিজের নাম লিখিয়ে গেছেন এই ইংলিশ ক্রিকেটার।

গত চারদিনের প্রতিটি মুহূর্তই আজীবন থাকবে কুকের স্মৃতিতে। এ নিয়ে কুকের ভাষ্য, ‘এই চার দিন ছিল আমার জীবনের সব থেকে অবিস্মরণীয় মুহূর্ত। আমার অনেক বন্ধুই এই কয়েকদিন আমাকে অভিবাদন জানিয়েছে, তবে  শতরান দিয়ে শেষটা, কোনও দিনই ভোলার নয়। শেষ কয়েকটা ওভারে দর্শকরা যেভাবে সমর্থন দিল, সেটা অবিশ্বাস্য।’