সরকারের লোকরাই মাদ‌কের গডফাদার: মোশাররফ


সরকারের লোকজনই ‌মাদকের গডফাদার বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির অন্যতম সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

৫ জুন, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় রাজধানীর একটি কমিউনিটি সেন্টারে ড. মোশাররফ হোসেন ফাউন্ডেশন লিমিটেড আয়োজিত এক ইফতার মাহফিলে মোশাররফ এ কথা বলেন।

ফাউন্ডেশনটি কুমিল্লা জেলায় সামাজিক উন্নয়নমূলক কাজে যুক্ত রয়েছে। এর চেয়ারম্যান ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন নিজেই।

বাজেট নিয়ে বিএনপির এই নেতা বলেন, শুধু নির্বাচনী বছর নয়, নির্বাচনী বাজেট দিয়ে এই দেশের মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করা হবে। গত বছরের বাজেটই সরকার পূর্ণ করার জন্য রাজস্ব আদায় করতে পারেনি।

মোশাররফ হোসেন প্রশ্ন করে বলেন, দেশ অত্যন্ত কঠিন সময়ে আছে। গত বছরের উন্নয়ন বাজেটকে কাটছাঁট করে অনেক কমিয়ে আনতে হয়েছিল। গত বছর যে বাজেট দেওয়া হয়েছে, সে বাজেট যদি রাজস্বের মাধ্যমে সংস্থান না হয়ে থাকে, এই বছর আরও বড় বাজেট দিয়ে কেন জনগণকে বোকা মনে করা হচ্ছে।

‘এই সরকার ঋণনির্ভর সরকার। ঋণ নিতে নিতে এমন অবস্থা, আমাদের উন্নয়ন বাজেটের বিরাট অংশ সুদ দিতে হয়। এই সুদ দেওয়ার ফলে পরে আর কিছু থাকে না’, বলেন মোশাররফ।

‘ব্যাংকগুলোতে আওয়ামী লীগের নেতারা, মন্ত্রীরা যেভাবে টাকা লুট করে নিয়ে গেছে, এই অবস্থায় যে বাজেট দেওয়া হচ্ছে, তা লোক দেখানো, প্রতারণা। নির্বাচনের বছরে জনগণকে ধোকা দেওয়ার বাজেট’, যোগ করেন সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

খন্দকার মোশাররফ বলেন, ‘যে জায়গা থেকে মাদক আসে, যে গডফাদাররা আনে, তাদেরকে যদি ধরা না হয়, শাস্তি না দেওয়া হয়, তাহলে চুনোপুঁটিদের ক্রসফায়ারে দেওয়ার মধ্য দিয়ে মূল গডফাদারদের আড়াল করা হচ্ছে। প্রশাসনেরও কিছু লোক আছে, যারা মাদকের সঙ্গে যুক্ত। তাদের যাতে ধরাছোঁয়ার বাইরে রাখা যায়, সে জন্য বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড। যাদের মেরে ফেলা হয়েছে, তাদের যদি বিচার করা হত, তাহলে গডফাদারদের নাম প্রকাশ্যে আসত।’

ফাউন্ডেশনের ট্রাস্টি ড. মারুফ হোসেন জানান, প্রতিষ্ঠানের উদ্যোগে দুটি কলেজ, তিনটি স্কুল, একটি মাদ্রাসা ও একটি এতিমখানা পরিচালিত হচ্ছে। এটি ২০০২ সালে প্রতিষ্ঠা করা হয়।